Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / নাসা মহাকাশে সামুদ্রিক প্রাণী স্কুইড পাঠাচ্ছে

নাসা মহাকাশে সামুদ্রিক প্রাণী স্কুইড পাঠাচ্ছে

যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা একশরও বেশি বেবি স্কুইড এবং পাঁচ হাজারের মতো একটি আণুবীক্ষণিক প্রাণী আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রে পাঠাতে যাচ্ছে। স্পেস এক্সের ফ্যালকন নাইন রকেটে করে ১০ই জুন, বৃহস্পতিবার আরো কিছু যন্ত্রপাতির সঙ্গে তাদের মহাকাশে পাঠানো হবে।

নাসার বিজ্ঞানীরা আশা করছেন, মহাকাশ অভিযানের সময় নভোচারীদের দেহে কী ধরনের প্রভাব পড়ে- এই পরীক্ষার মাধ্যমে সেটা জানা সম্ভব হবে। তারা বলছেন, জীবাণুর সঙ্গে প্রাণীর সম্পর্ক বুঝতেও এই গবেষণা সাহায্য করবে।

নাসা বলছে, দীর্ঘ মেয়াদী অভিযানের সময় নভোচারীদের স্বাস্থ্য রক্ষায় কী ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া দরকার এই গবেষণা থেকে এবিষয়ে ধারণা পাওয়া যেতে পেরে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, মহাকাশে অভিযানের সময় নভোচারীদের দেহে যে ধরনের পরিবর্তন ঘটে সেটা দীর্ঘ দিনের উদ্বেগের বিষয়। তারা বলছেন, একজন নভোচারী ছয় মাস মহাকাশে থাকলে তার শরীরে যতো পেশি আছে তার ৪০ শতাংশই ক্ষয় হয়ে যায়।

নাসার একজন বিজ্ঞানী জেমি ফস্টার, যিনি এই প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত, তিনি বলছেন, মানুষ ও পশুপাখির পরিপাকতন্ত্র এবং রোগ প্রতিরোধী ব্যবস্থা বিভিন্ন অণুজীবের ওপর নির্ভরশীল। কিন্তু মহাকাশে যাওয়ার পর মানবদেহে কী ধরনের পরিবর্তন ঘটে সেবিষয়ে আমাদের পুরো ধারণা নেই। মহাকাশে সামুদ্রিক প্রাণী স্কুইড পাঠানোর এই মিশন থেকে সেবিষয়ে জানা যাবে।

উদ্দেশ্য কী : নাসার মহাকাশ বিজ্ঞানী ড. অমিতাভ ঘোষ বিবিসিকে বলেছেন, মহাকাশে মানুষের যাওয়া বা সেখানে থাকার ব্যাপারে এই গবেষণা সাহায্য করবে।

তিনি বলেন, “আমরা এখন শুনি যে মানুষকে চাঁদে পাঠানো হবে, মঙ্গলে পাঠানো হবে। কিন্তু মানুষের যে শরীর ও মন সেটা মহাকাশে থাকার মতো নয়।”

“যেখানে মাধ্যাকর্ষণ নেই সেখানে শরীরের হাড় থেকে ক্যালসিয়ামের ক্ষয় হয়। পেশি দুর্বল হয়ে পড়ে। মানুষের খাবার হজম করার প্রক্রিয়ায় অনেক ছোটখাটো ব্যাকটেরিয়া জীবাণু থাকে যাদের কারণে আমাদের শরীর স্বাভাবিকভাবে কাজ করে। এরকম আরো অনেক কিছু ঘটে যা আমরা এখনও জানি না।”

তিনি বলেন, স্কুইডের হজম করার যে প্রক্রিয়া সেখানে ব্যাকটেরিয়া কী ধরনের ভূমিকা রাখছে এই মিশনে সেটা জানা যাবে।

মানবদেহে মহাকাশের প্রভাব : আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনে তো বহু বছর ধরেই নভোচারীরা যাওয়া আসা করছেন। বেশ কিছুটা সময় ধরে সেখানে বসবাসও করছেন। দেখা গেছে একটা দীর্ঘ সময় মহাকাশে থাকার ফলে তাদের শরীরে নানা ধরনের পরিবর্তন ঘটছে।

Check Also

ঢাকা চট্টগ্রাম ও সিলেট মহাসড়ক হবে স্বস্তির সড়ক – ওসি মনিরুজ্জামান

যানজট নিরসনের যাত্রীদের জন্য ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক হবে স্বস্তির সড়ক হবে বলে জানান কাঁচপুর হাইওয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *