Breaking News
Home / জাতীয় / তালতলীতে বন্দোবস্ত ও ব্যক্তি মালিকানার জমিতে খাল খনন!

তালতলীতে বন্দোবস্ত ও ব্যক্তি মালিকানার জমিতে খাল খনন!

তালতলী(বরগুনা)প্রতিনিধি :

বরগুনার তালতলীতে সরকারী ভাবে বন্দোবস্ত ও ব্যক্তি মালিকানাধীন জমির ওপর পানি উন্নয়ন বোর্ডখাল খনন করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জোরপূর্বক খাল খনন করছে বলে আদালতে জেলা প্রশাসক,পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলীসহ ৫ জন কে বিবাদী করে আদালতে একটি মামলা করেন ভূমি মালিক ফারুক খান।

জলাবদ্ধতা নিরসনে বাস্তবায়নাধীন মেগা প্রকল্পের আওতায় উপজেলার সোনাকাটা ইউনিয়নের কবিরাজ পাড়া একটি খালের অংশে বন্দোবস্ত জমি বাতিল করার কোনো নোটিশ না দিয়ে ও ব্যক্তি মালিকানার জমিতে জোরপূর্বক খননের মাটি ফেলার অভিযোগ তুলেছেন তারা।

শনিবার দুপুরে সাংবাদিকদের কাছে এমন অভিযোগ করে ভুক্তভোগি পরিবারটি বলেন,উপজেলার সোনাকাটা ইউনিয়নের কবিরাজ পাড়া একটি খালের ১৯৮৯-৯০ সালে ৫টি দাগে মোট ১ একর ৪০ শতাংশ জমি বন্দোবস্ত দেয় সরকার। এই খালটি কার্ডের মাধ্যমে রাখাইনদের দিয়ে দেয়। পরবর্তীতে আমরা পারমিশন দলিল করে চাষা বাদ করে আসছি। পানি উন্নয়ন বোর্ড খাল খনন করছে ৩২ফুট কিন্তু খাল খননের মাটি কেটে রেকর্ডিয় ফসলি জমি নষ্ট করছে ৭০ ফুটের মতো। এতে করে আমার দুই পাশের প্রায় ৭০ ফুট ফসলি জমি নষ্ট হচ্ছে।

এ ব্যাপারে ভূমি মালিক ফারুক খান বলেন, এই জমি নিয়ে আদালতে মামলা চলমান আছে। সরকারি কর-খাজনাদি দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ভোগ দখলে আছি। কিন্তু পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ অধিগ্রহণ কিংবা নোটিশ না দিয়ে এসব জমি দখল করে খাল খনন করছে। জোরপূর্বক খননের মাটি আমাদের চাষাবাদের জমিতে ফেলছে। এতে করে একদিকে আমাদের বন্দোবস্ত খাল ও রেকর্ডি জমি বেদখলে যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, জলাবদ্ধতা নিরসন হোক আমরা চাই। দরকার হলে জমি দিতে রাজী আছি। কিন্তু আদালতের রায়ের পরে সিদ্ধন্ত হোক।

এ বিষয় ঠিকাদারের প্রতিনিধি মোঃ সুমন বলেন,পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাজ করতেছি তারা যে ভাবে বলে সেই ভাবেই কাজ করছি। এতে যদি তাদের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয় সেটা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাছে বলতে পারেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলী মোঃ কাইছার আলম বলেনন,খাল খনন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতির একটি প্রকল্প। সেই অনুযায়ী তা বাস্তবায়ন করছি আমরা। খালটির ভূমি ও বন্দোবস্ত জমির মালিক ফারুক খান যে তার দাবি করছে এটি কোনো তথ্য আমাদের কাছে নেই।

তিনি আমাদের বাদি করে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন । আদালত যদি রায় দেয় যে তার ব্যক্তি মালিকানার জমির ওপর খাল খনন করা হলে অবশ্যই ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। মাটি ব্যক্তিগত জমিতে ফেলানোর বিষয়ে বলেন, মাটি গুলো পরে সরিয়ে নেওয়া যেতে পারে।

Check Also

ঢাকা চট্টগ্রাম ও সিলেট মহাসড়ক হবে স্বস্তির সড়ক – ওসি মনিরুজ্জামান

যানজট নিরসনের যাত্রীদের জন্য ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক হবে স্বস্তির সড়ক হবে বলে জানান কাঁচপুর হাইওয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *