Breaking News
Home / জাতীয় / ঝালকাঠি মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানের ৪১ বেইলি সেতু এখন মরণফাঁদ

ঝালকাঠি মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানের ৪১ বেইলি সেতু এখন মরণফাঁদ

ঝালকাঠি জেলা প্রতিনিধিঃ

ঝালকাঠির সড়ক ও জনপদ বিভাগের দীর্ঘদিনের পুরাতন ৪১ বেইলি সেতুর প্রায় সবগুলোই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এসব সেতুতে একের পর এক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন অনেকেই। আটকে পড়ছে যানবাহন, বন্ধ থাকছে যান চলাচল। বিভিন্ন সময় নামমাত্র মেরামত করা হলেও এ সমস্যা সমাধানে স্থায়ী কোনো পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না।  সূত্র বলছে, ঝালকাঠির সড়ক ও জনপদ বিভাগের ২৬০ কিলোমিটার সড়কে ৪১টি বেশি বেইলি সেতুর প্রায় সবগুলোই ঝুঁকিপূর্ণ। বিভিন্ন সময় এসব সেতুগুলোর একেকটির পাত (প্লেট) ভেঙে কিংবা দেবে গিয়ে প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা। বন্ধ হয়ে যায় যান চলাচল। এসব দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে অনেকে। এসব সেতু ঝুঁকিপূর্ণ হলেও সড়ক বিভাগের পক্ষ থেকে নেই কোনো সর্তকতামূলক সংকেত। ঝুঁকি নিয়ে সরু এ সেতুগুলো পারাপারে নানা বেগ পেতে হয় চালকদের। ৩০/৪০ বছরের এসব পুরাতন সেতু বিভিন্ন সময় নামমাত্র মেরামত করা হলেও আবার ভেঙে একাকার হয়ে দুর্ঘটনা পড়ছে ট্রাক, বাস ও মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহন। অধিকাংশ সেতু বেশি পুরাতন হওয়ায় কোনোটি বেঁকে গিয়ে দেবে আছে। এসব সেতুতে যেকোনো সময় বাসসহ ধসে গিয়ে ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। এছাড়া মহাসড়কে যত্রতত্র স্পিড ব্রেকার ও সড়কের মোড়গুলোতে সঠিকভাবে সাংকেতিক ফলক না থাকায় ঘন কুয়াশায় দুর্ঘটনায় ঘটছে। এসব সমস্যা সমাধানে নেই কোনো উদ্যোগ। চালক ও স্থানীয়রা বলছেন, বেইলি ব্রিজের প্রায় সবগুলোই ঝুঁকিপূর্ণ, প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সরু এ সেতুগুলো ভয়ে ভয়ে পার হতে নানা বেগ পেতে হয় চালকদের। এসব সেতু ভেঙে নতুন করে ঢালাই সেতু নির্মাণের দাবি স্থানীয়দের। জানা গেছে, বরিশাল-খুলনা আঞ্চলিক মহাসড়কের ঝালকাঠির বাসন্ডা নদীর ওপর আশির দশকে নির্মিত বেইলি ব্রিজটি চার বছর আগে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। গুরুত্বপূর্ণ এই সেতুটি দিয়ে বরিশাল বা ঝালকাঠি থেকে পিরোজপুর, বাগেরহাট, খুলনা, ভান্ডারিয়া, মঠবাড়িয়া, পাথরঘাটাসহ দক্ষিণ-পশ্চিম আঞ্চলগামী প্রতিদিন শত শত যানবহন যাতায়াত করে। সেতুটির উপরে বাস বা ট্রাক উঠলে তা দুলতে থাকে। এছাড়া এই সেতুর স্লাবগুলো আলগা হয়ে রয়েছে। প্রায়ই এখানে দুর্ঘটনা ঘটে। শুধু বাসন্ডা বেইলি ব্রিজই নয়, সদর উপজেলার কির্ত্তীপাশা ইউনিয়নের বেশাইনখান ও তারাপাশার দুইটি বেইলি ব্রিজ, রাজাপুরের বাগড়ী বেইলি ব্রীজ, নৈকাঠি বেইলি ব্রিজসহ জেলার ৪১টি বেইলি ব্রিজ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। ঝালকাঠি সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. হুমায়ুন কবির জানান, প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য কাজ চলমান রয়েছে। অনুমোদন হলেই ঝুকিপূর্ণ এ সেতুগুলোর পরিবর্তে সেখানে নতুন ব্রিজ ও কার্লভার্ট নির্মাণ করা হবে।

Check Also

ঢাকা চট্টগ্রাম ও সিলেট মহাসড়ক হবে স্বস্তির সড়ক – ওসি মনিরুজ্জামান

যানজট নিরসনের যাত্রীদের জন্য ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক হবে স্বস্তির সড়ক হবে বলে জানান কাঁচপুর হাইওয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *